Health experience | Write here | Write and share your health experience to help community.

সালমোনেলা বা খাদ্যে বিষক্রিয়া কেন হয়? জানুন এর লক্ষণ সমূহ ও প্রতিকার

Fahima Jara Wednesday, September 22, 2021

সালমোনেলাকে খাদ্যের বিষক্রিয়া হিসাবে উল্লেখ করা হয়। যা অধিকাংশই মানুষের জীবনকালে মুখোমুখি হয়েছে বা সম্মুখীন হয়েছে । সালমোনেলা অদৃশ্য, গন্ধহীন এবং স্বাদহীন। সালমোনেলা একটি ব্যাকটেরিয়া দ্বারা সৃষ্ট অসুস্থতার আনুষ্ঠানিক নাম সালমোনেলোসিস। এটি পেটের অস্বস্তি, খিঁচুনি, ডায়রিয়া, জ্বর এবং জ্বরের মতো লক্ষণ তৈরি করতে পারে। ৪ থেকে ৭ দিনের মধ্যে, বেশিরভাগ মানুষ বাড়িতে নিজেরাই সালমোনেলা রোগের লক্ষণ পেয়ে থাকে। 


সালমোনেলা সংক্রমণ বেশ ঘন ঘন হয়। যখন মানুষ খাদ্যে বিষক্রিয়ার কথা বলে, তখন তারা সাধারণত সালমোনেলাকে বুঝিয়ে থাকে । প্রতিবছর, বিশ্বজুড়ে লক্ষ লক্ষ সালমোনেলা রোগের উদাহরণ রেকর্ড করা হয়। সালমোনেলা

রোগের পরিস্থিতি গুরুতর হলে নিজের বাড়ির কাছে হাসপাতালে যাওয়া উচিত। বিরল ক্ষেত্রে সালমোনেলার কারণে প্রাণঘাতীও হতে পারে। শীতকালীন সালমোনেলা সংক্রমণের চেয়ে গ্রীষ্মের সংক্রমণ বেশি হয়। এটি উচ্চ তাপমাত্রায় সালমোনেলার দ্রুত বৃদ্ধির কারণে খাদ্য সঠিকভাবে হিমায়িত হয় না।




সালমোনেলা রোগের কারণ 

সালমোনেলা হলো এক ধরনের ব্যাকটেরিয়া যা মানুষ এবং প্রাণীর পাচনতন্ত্রের (অন্ত্র) মধ্যে বেঁচে থাকতে পারে। সালমোনেলা অন্ত্রের মধ্য দিয়ে মল পর্যন্ত যেতে পারে। ব্যাকটেরিয়া প্রায়ই দূষিত খাবারের মাধ্যমে সংক্রমিত হয়। একজন ব্যক্তি নিম্নলিখিত কারণে সালমোনেলা দ্বারা সংক্রমিত হতে পারেন:


১/ কাঁচা বা কম রান্না করা খাবার খাওয়া। রান্নার মাধ্যমে সালমোনেলা মারা যায়। কাঁচা বা কম রান্না করা মাংস, হাঁস -মুরগি বা শেলফিশ খেলে বিপদ ঘটার সম্ভাবনা থাকে। 


২/ কাঁচা ডিমযুক্ত খাবারগুলিও বিপজ্জনক যেমন- কুকি, ময়দা বা বাড়িতে তৈরি মেয়োনিজ।


৩/ সালমোনেলা ধোয়া, কাঁচা শাকসবজি এবং ফলের মধ্যেও পাওয়া যায়।


৪/ কাঁচা মাংস রান্না করা খাবার খাওয়া যেমন - কাটিং বোর্ড, বা কাউন্টারটপ ।


৫/ মল-দূষিত খাবারের ব্যবহার। যদি কোন খাদ্য কর্মী খাবার হ্যান্ডেল করার আগে তার হাত ধুতে না পারে, তাহলে সালমোনেলা হতে পারে।


৬/ যেসব খাবার প্রক্রিয়াজাত করা হয়েছে, যেমন- চিকেন নাগেট এবং বাদামের মাখন।


৭/ সঠিকভাবে হাত ধোয়ার অভাব হলে সালমোনেলা সরাসরি আক্রমণ করাতে পারে। টয়লেট ব্যবহার বা ডায়াপার পরিবর্তন করার পর যদি কোন ব্যক্তি নিজের হাত ভালভাবে না ধুয়ে থাকেন, তাহলে তার ব্যাকটেরিয়া অন্ত্রের মধ্যে প্রেরণ করার সম্ভবনা থাকে। 


৮/ পোষা প্রাণীর ব্যাকটেরিয়া যেমন- কুকুর, বিড়াল, পাখি এবং সরীসৃপ দ্বারা বাহিত হতে পারে।




সালমোনেলোসিসের লক্ষণগুলি সাধারণত ছোট হয়।

বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই রোগীরা থেরাপি ছাড়াই সুস্থ হয়ে ওঠে। যাইহোক, কিছু পরিস্থিতিতে বিশেষ করে তরুণ এবং বয়স্কদের মধ্যে, পানিশূন্যতা যার ফলাফল হতে পারে মারাত্মক এবং জীবন-হুমকি। সালমোনেলা সংক্রমণের বেশিরভাগ লক্ষণ এবং উপসর্গ পেটের সাথে সংযুক্ত থাকে। যেমন- 


১. ইরিটেবল অন্ত্র সিন্ড্রোম (IBS)


২. রক্তাক্ত মল


৩. ডায়রিয়া


৪. ঠাণ্ডা লাগা 


৫. জ্বর


৬. মাথাব্যাথা


৭. পেট ব্যাথা


৮. পুকিং


৯. শ্বাসকষ্ট


১০. বমি 



লক্ষণগুলি সাধারণত সংক্রমণের ৮ থেকে ৭২ ঘন্টার মধ্যে উপস্থিত হয়। বেশিরভাগ লক্ষণ এক সপ্তাহের বেশি স্থায়ী হয় না। তবে মানুষের অন্ত্রের গতি স্বাভাবিক হতে অনেক মাস লাগতে পারে।


সালমোনেলার কারণে যদি কোন ব্যক্তির ডায়রিয়ার হয় তাহলে এটা প্রতিস্থাপন করার জন্য পর্যাপ্ত পরিমাণে তরল খাবার খেতে হবে। কেননা পর্যাপ্ত পরিমাণে তরল খাবার না পেলে পানিশূন্য হয়ে যাওয়ার সম্ভাবনা থাকে। 


সালমোনেলা সংক্রমণ কিছু সংখ্যক মানুষের অস্বস্তির কারণ হতে পারে। এটি ডাক্তারদের দ্বারা প্রতিক্রিয়াশীল আর্থ্রাইটিস বা রাইটার সিনড্রোম নামেও পরিচিত। এটি মাস বা এমনকি বছর ধরে চলতে পারে। এই রোগে চুলকানি, হুল ফোটানো বা বেদনাদায়ক চোখ এবং প্রস্রাবের সময় ব্যাথাও হতে পারে। যদি সালমোনেলা মানুষের রক্ত ​​প্রবাহে প্রবেশ করে, এটি মানুষের শরীরের অন্যান্য অঞ্চলে ছড়িয়ে পড়তে পারে, যার মধ্যে রয়েছে:


১. মানুষের মস্তিষ্ক এবং মেরুদণ্ডের টিস্যু।


২. হৃদয়ের আস্তরণ বা হৃদয়ের ভালভ


৩. হাড় বা হাড়ের মজ্জা


৪. রক্তনালীর আস্তরণ।




সালমোনেলা রোগ প্রতিরোধ

বাণিজ্যিক এবং আবাসিক উভয় ক্ষেত্রেই কৃষি উৎপাদন থেকে প্রক্রিয়াজাতকরণ, উৎপাদন, এবং খাদ্য প্রস্তুতি পর্যন্ত খাদ্য শৃঙ্খলের সকল পর্যায়ে নিয়ন্ত্রণ ব্যবস্থা বাস্তবায়ন করতে হবে। সালমোনেলা অনেক খাবারে পাওয়া যেতে পারে, কিন্তু জীবাণুগুলিকে দূরে রাখার জন্য বেশ কিছু কাজ করা যেতে পারে। যেমন- 


১/ ডিম এবং মাংস প্রচুর পরিমাণে সিদ্ধ করে রান্না করতে হবে। 


২/ আনপেস্টুরাইজড দুধ বা রস দিয়ে তৈরি যেকোনো কিছু এড়িয়ে চলতে হবে।


৩/ রান্না করার আগে, কাঁচা মুরগি, মাংস বা ডিম ধুয়ে ফেলতে হবে। 


৪/ কাঁচা ফল এবং শাকসবজি ভালো ভাবে ধুয়ে ফেলতে হবে। যদি সম্ভব হয় তবে খোসা ছাড়ানো উচিত।


৫/ যদি কেউ বমি করে বা ডায়রিয়া হয় তবে সেই ব্যক্তির উচিত অন্যদের জন্য খাবার তৈরি না করা। 


৬/ রান্নার আগে এবং পরিবেশন করার পরে খাবার ভালো ভাবে ফ্রিজে রাখতে হবে ।


৭/ খাবার খাওয়ার আগে এবং পরে, সাবান এবং উষ্ণ জল দিয়ে নিজের হাত ভালো ভাবে ধুয়ে নিতে হবে। 


৮/ রান্নাঘরের উপরিভাগে খাবার রান্না করার আগে নিশ্চিত হয়ে নিতে হবে যে রান্না ঘর পরিষ্কার আছে কিনা। 


৯/ রান্না করা এবং কাঁচা খাবার একই পাত্র ব্যবহার করে মেশানো বা প্রস্তুত করা উচিত নয়। উদাহরণস্বরূপ, একই ছুরি দিয়ে কাঁচা মুরগি কাটা যাবে না। যেটা দিয়ে অন্যান্য সবজি বা মাশরুম টুকরো টুকরো করে কাটার কাজে ব্যবহার হয়েছে। আলাদা প্লেট বা কাটিং বোর্ড ব্যবহার করতে হবে। 


১০/ সঠিক ন্যূনতম তাপমাত্রায় না আসা পর্যন্ত মাংস রান্না করতে হবে। নিশ্চিত হতে, একটি খাদ্য থার্মোমিটার ব্যবহার করা যেতে পারে ।


১১/ গৃহপালিত কোন প্রাণী স্পর্শ করার পর, বিছানায় আসার আগে অবশ্যই সাবান দিয়ে ভালো করে হাত ধুয়ে নিতে হবে। 




সালমোনেলা রোগের চিকিৎসা

সালমোনেলা সাধারণত চার থেকে সাত দিনের মধ্যে পরিষ্কার হয়ে যায় এবং চিকিৎসার প্রয়োজন হয় না। ডায়রিয়ার কারণে হারিয়ে যাওয়া তরল পুনরায় পূরণ করতে, অসুস্থতার সময় ব্যক্তির পর্যাপ্ত তরল খাবার খাওয়া উচিত।


গুরুতর ডায়রিয়ায় আক্রান্ত ব্যক্তি বা যিনি এক সপ্তাহেরও বেশি সময় ধরে অসুস্থ ছিলেন তাকে হাসপাতালে ভর্তির প্রয়োজন হতে পারে। তাকে হাসপাতালে অন্তঃসত্ত্বা (IV) তরল দেওয়া হবে। অ্যান্টিবায়োটিক শিশুদের, ৬৫ বছরের বেশি বয়সী ব্যক্তিদের, যাদের দুর্বল ইমিউন সিস্টেম (যেমন ক্যান্সার রোগী), এবং যাদের গুরুতর ডায়রিয়া এবং উচ্চ জ্বর আছে, সেইসাথে যাদের রক্তের জীবাণু আছে তাদের চিকিৎসার জন্য ব্যবহার করা যেতে পারে।


এছাড়াও চিকিৎসক নানা রকম অ্যান্টিবায়োটিক দিয়ে থাকেন। চিকিৎসক প্রথমে যাচাই করে নেয় অসুস্থ ব্যক্তির শরীরে সালমোনেলা সংক্রমন আছে কিনা। এছাড়াও প্রচুর পরিমাণে পানি পান করতে হবে। যেসব ব্যক্তিদের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বেশি তাদের খুব দ্রুত সালমোনেলা রোগটি সেরে যায়। চিকিৎসকরা সাধারণত বিরল পরিস্থিতিতে রোগীদের অ্যান্টিবায়োটিক দিয়ে থাকেন।  



Share

Cloud categories

polycystic ovarian disease arthritis fertility cavities severe diarrhea salmonellosis irritable bowel syndrome breast contraception substance abuse disorders ear lymphomas severe allergies ankylosing spondylitis myocardial infarction schizophrenia scratches excessive sweating cervical cancer hepatic encephalopathy pancreatic prevention of tuberculosis vitamin c hepatitis-c lichen diarrhea skin diseases pregnancy eczema hiv / aids immunodeficiency braces infected wounds pain streptococcus gum swelling

দিন দিন ডিপ্রেশন বেড়ে যাচ্ছে কি

বর্তমান সময়ে আমাদের জীবনের অন্যতম বড় সমস্যা ডিপ্রেশন। আমাদের পরিবার, বন্ধু-বান্ধব, এমনকী ন ...

1 Like

কেন ডাক্তাররা সিজার করেন? জেনেনিন সিজার করার কারণ সমূহ

স্বাভাবিক ডেলিভারি ঝুঁকিপূর্ণ হলে মা ও শিশুর সুস্থতার স্বার্থে সিজার পদ্ধতিতে ডেলিভারির প্ ...

2 Like

আপনি কি অ্যালকোহল পান করেন ? কিছু বিষয় যেনে পান করুন

অ্যালকোহল এমন একটা পানীয় যা দেখলেই পান করতে মন চায়। আগের দিনে অ্যালকোহল জলের বিকল্প হিসেব ...

2 Like

হটাত জ্বরে আক্রান্ত হলে করনীয়

জ্বর কোনো রোগ নয়, রোগের উপসর্গ। অনেক জ্বরেই কোনো অ্যান্টিবায়োটিকের প্রয়োজন হয় না। জ্বর হলে ...

0 Like

হোমিওপ্যাথি কিভাবে কাজ করে ? চিকিৎসা নেয়ার আগে কিছু পরামর্শ

হোমিওপ্যাথি একটি লক্ষণ ভিত্তিক চিকিৎসা বিজ্ঞান । মনেরাখতে হবে যে, রোগের লক্ষণগুলোই রোগের প ...

0 Like

হোমিওপ্যাথি কিভাবে কাজ করে ?, চিকিৎসা নেয়ার আগে কিছু পরামর্শ

হোমিওপ্যাথি একটি লক্ষণ ভিত্তিক চিকিৎসা বিজ্ঞান । মনেরাখতে হবে যে,রোগের লক্ষণগুলোই রোগের পর ...

0 Like

স্ত্রী সহবাসের সুন্নাত নিয়ম?

সহবাসের সঠিক নিয়ম হলো স্ত্রী নিচে থাকবে আর স্বামী ঠিক তার উপরি ভাবে থেকে সহবাস করবে। মহান ...

1 Like

মাসিক হবার কত দিন আগে বা পড়ে কনডম ছাড়া সেক্স করা নিরাপদ

মাসিকের সময়ে শারীরিক মিলন করলে গর্ভধারনের সম্ভাবনা থাকে না, তবে এই সময়ে শারীরিক মিলন থেকে ...

1 Like