Health experience | Write here | Write and share your health experience to help community.

সিজোফ্রেনিয়া বা তথাকথিত জিনে ধরা রোগ কি? জানুন এর লক্ষণ সমূহ ও প্রতিকার

Fahima Jara Wednesday, September 22, 2021

সিজোফ্রেনিয়া এক ধরনের মানসিক ব্যাধি। যা অস্বাভাবিক সামাজিক আচরণ, বিভ্রম, জ্ঞানীয় চ্যালেঞ্জ এবং হ্যালুসিনেশন দ্বারা চিহ্নিত করা হয়। সিজোফ্রেনিয়ায় আক্রান্ত ব্যক্তি প্যারানিয়া, স্নায়বিকতায় ভুগে থাকেন সিজোফ্রেনিয়ায় আক্রান্ত ব্যক্তিদের প্রায়ই অতিরিক্ত মানসিক ব্যাধি যেমন- বিষণ্নতা, উদ্বেগজনিত ব্যাধি এবং পদার্থ ব্যবহারের ব্যাধি থাকে।


এই মানসিক রোগের জন্য যেসব কারণ দায়ী তা হল পরিবেশগত এবং জিনগত কারণ। কিছু পরিবেশগত কারণ গর্ভাবস্থায় নির্দিষ্ট সংক্রমণ এবং পুষ্টির অভাব অন্তর্ভুক্ত করতে পারে। জেনেটিক ফ্যাক্টরগুলির মধ্যে রয়েছে বিভিন্ন ধরনের বিরল এবং কিছু সাধারণ জেনেটিক রূপ। বিশেষজ্ঞরা আরও বলেন, সিজোফ্রেনিয়াও মস্তিষ্কে রাসায়নিক ভারসাম্যহীনতার ফল। ডিপামিন, একটি নিউরোট্রান্সমিটার সিজোফ্রেনিয়ার সূত্রপাতের সাথে জড়িত। কিছু অন্যান্য নিউরোট্রান্সমিটারের ভারসাম্যহীনতা যেমন- সেরোটোনিনও সিজোফ্রেনিয়ার কারণ হতে পারে।




ব্যক্তির উপর নির্ভর করে, সিজোফ্রেনিয়ার লক্ষণগুলি ভিন্ন হতে পারে। লক্ষণ এবং উপসর্গগুলি চারটি শ্রেণীতে বিভক্ত রয়েছে। যেমন- 

১/ ইতিবাচক উপসর্গ


২/ নেতিবাচক উপসর্গ


৩/ জ্ঞানীয় লক্ষণ


৪/ আবেগের লক্ষণ


ইতিবাচক উপসর্গগুলিকে সাইকোটিক উপসর্গও বলা হয়। এর মধ্যে রয়েছে- 


১. হ্যালুসিনেশন 


২. চিন্তার ব্যাধি এবং 


৩. বিভ্রম। 


নেতিবাচক লক্ষণগুলির মধ্যে রয়েছে মুখের অভিব্যক্তি অনুপস্থিতি এবং কিছু করার জন্য ড্রাইভের অভাব। তৃতীয় ধরনের উপসর্গ হলো জ্ঞানীয় লক্ষণ। জ্ঞানীয় উপসর্গগুলি ব্যক্তির চিন্তা করার ক্ষমতাকে প্রভাবিত করে। উদাহরণস্বরূপ- কাজ বা অধ্যয়নের সময় দুর্বল মনোযোগ। আবেগের লক্ষণগুলি সাধারণত নেতিবাচক উপসর্গ। এতে ভোঁতা আবেগ অন্তর্ভুক্ত থাকতে পারে।


সিজোফ্রেনিয়া রোগীর কর্ম পর্যবেক্ষণ করে নির্ণয় করা হয়। কয়েকটি পরীক্ষায় রক্ত ​​পরীক্ষা, কিছু প্রশ্ন করে ব্যক্তির মানসিক অবস্থা মূল্যায়ন, আত্মহত্যার বৈশিষ্ট্য, মেজাজ, হ্যালুসিনেশন, হিংসাত্মক প্রবণতা মূল্যায়ন করা হতে পারে। ডাক্তার রোগীর চেহারা এবং মনোভাবও পর্যবেক্ষণ করেন।




সিজোফ্রেনিয়ার কারণ ও লক্ষণ

ডাক্তাররা জীবনের কিছু সময়ে সিজোফ্রেনিয়ার আক্রান্ত রোগীকে জৈবিক এবং মনস্তাত্ত্বিক সমস্যাগুলির জন্য বহুমুখী ঝুঁকির কারণগুলিকে দায়ী করেন। যা পরবর্তীকালে সিজোফ্রেনিয়ার বিকাশের সাথে যুক্ত হতে পারে। সঠিক পুষ্টি, কম ওজন ওজনের শিশু, শৈশব ট্রমা, কিশোর মাদক অপব্যবহার এবং মৃগীরোগ ইত্যাদি সিজোফ্রেনিয়া রোগের জন্য দায়ী। 


সিজোফ্রেনিয়া প্রধানত মস্তিষ্কের হরমোনের মত ডোপামিন এবং অন্যান্য নিউরোট্রান্সমিটারের বংশগত এবং মনস্তাত্ত্বিক কারণের কারণে হয়। বিশেষ করে ১৫-২৫ বছর বয়সে প্রভাবিত করে। চিকিৎসা প্রধানত ঔষধ এবং মনো-সামাজিক সহায়তা দ্বারা করা হয়।




সিজোফ্রেনিয়া নির্ণয়ের একমাত্র উপায় হলো এর উপসর্গ। সিজোফ্রেনিয়ার লক্ষণগুলি হলো- 

১. কাল্পনিক কণ্ঠস্বর শোনা


২. বিভ্রম


৩. চলাচলের ব্যাধি


৪. ঘন্টার পর ঘন্টা খালি জায়গায় তাকিয়ে থাকা


৫. আবেগের অভিব্যক্তি হ্রাস


৬. তীব্র মাথাব্যাথা


৭. রাতে ঘুমাতে না পারা


৮. ক্ষুধামান্দ্য


৯. একাগ্রতায় অসুবিধা


১০. ব্যক্তিগত স্বাস্থ্যবিধি বজায় রাখতে অক্ষমতা


১১. ভয়ঙ্কর, সন্দেহজনক এবং যুক্তিযুক্ত হয়ে ওঠা। 


১২. সামাজিকীকরণ বা অন্যদের সাথে যোগাযোগ করার আকাঙ্ক্ষার অভাব, এমনকি বন্ধু এবং আত্মীয়স্বজন দের সঙ্গেও। 


১৩. সারা দিন উলটা পালটা চিন্তা করা। যেমন - এই ভেবে যে মানুষ আপনার ক্ষতি করতে চায়৷ 


১৪. একা একাই বিড়বিড় করা 


১৫. আত্মঘাতীর চিন্তা




সিজোফ্রেনিয়া রোগ প্রতিরোধ

রোগীর বিশ্বাস বা বিভ্রান্তিকে কখনোই চ্যালেঞ্জ করা যাবে না। পরিবর্তে, একটি সহায়তা কাঠামো তৈরি করতে এবং তাদের পুনরুদ্ধারের জন্য সঠিক চিকিৎসা প্রদান করতে হবে। সিজোফ্রেনিয়ার লক্ষণগুলির প্রাথমিক স্বীকৃতি এবং হস্তক্ষেপই সিজোফ্রেনিয়া পরিচালনার মূল চাবিকাঠি। বর্তমানে, এই রোগের চিকিৎসার জন্য চিকিৎসকের কাছে বিস্তৃত কার্যকর ঔষধ রয়েছে। এছাড়াও, সিজোফ্রেনিকদের জন্য অসুস্থতার সাথে বেঁচে থাকা এবং পরিবার এবং সমাজে পুনঃসংগঠিত হওয়া আরেকটি চ্যালেঞ্জ। 




সিজোফ্রেনিয়ার চিকিৎসা

উপসর্গ না থাকার পরেও সিজোফ্রেনিয়ার আজীবন চিকিৎসার প্রয়োজন হয় । মনোবৈজ্ঞানিক থেরাপির সাথে ঔষধের অবস্থা নিয়ন্ত্রণে সাহায্য করতে পারে। কিছু ক্ষেত্রে, হাসপাতালে ভর্তির প্রয়োজন হয়। সিজোফ্রেনিয়ার সময় ঔষধ গুলি চিকিৎসার ভিত্তি হিসেবে কাজ করে । অ্যান্টিসাইকোটিক ঔষধ সবচেয়ে সাধারণ নির্ধারিত ঔষধ। এই ঔষধ মস্তিষ্কের নিউরোট্রান্সমিটার ডোপামিনকে প্রভাবিত করে কাজ করে।


চিকিৎসার লক্ষ্য হলো সম্ভাব্য সর্বনিম্ন ডোজ সহ লক্ষণ এবং উপসর্গগুলি কার্যকরভাবে পরিচালনা করা। ডাক্তাররা কাঙ্ক্ষিত ফলাফল অর্জনের জন্য বিভিন্ন ঔষধ বিভিন্ন সংমিশ্রণ এবং বিভিন্ন মাত্রায় ব্যবহার করতে পারে। অন্যান্য ঔষধ যেমন - antianxiety এবং antidepressant সিজোফ্রেনিয়ার কাজ করতে পারে। লক্ষণগুলিতে দৃশ্যমান উন্নতি লক্ষ্য করতে কয়েক সপ্তাহ লাগতে পারে।


সিজোফ্রেনিয়া চিকিৎসার গুরুতর পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া সৃষ্টি করতে পারে এবং এইভাবে যারা ভুগছেন তারা ঔষধ গ্রহণ থেকে বিরত থাকতে পারেন। অ্যান্টি-সাইকোসিস ঔষধগুলো সিজোফ্রেনিয়ার চিকিৎসায় পরিবর্তন এনেছে। যার ফলে রোগীরা কমিউনিটির সাথে বসবাস করতে পারে এবং হাসপাতালে ভর্তি থাকার প্রয়োজন হয় না। 

সবচেয়ে সাধারণ সিজোফ্রেনিয়া ঔষধ হলো-


১. রিসপেরিডোন


২. ওলানজাপাইন 


৩.কোয়েটিয়াপাইন


৪. জিপ্রাসিডোন


৫. ক্লোজাপাইন এবং 


৬. হ্যালোপেরিডল।



Share

Cloud categories

down syndrome schizophrenia spondylitis first muscle spasm type 2 diabetes pancreatic cancer osteoporosis calcium and vitamin d supplement irritability vitamin a indigestion burns atherosclerosis premenstrual dysphoric disorder migraine headache iron vaginal itching peritonitis abdominal pain edema wounds aggression plaque psoriasis russell's viper and saw-scaled tetanus skin infection sperm production insect bites polycystic ovary syndrome injuries spasm dry eye sunburn cirrhosis

নাক বন্ধ হলে এন্টাজল দিলে কি ক্ষতি হয়?

 নাক বন্ধে নাকের ড্রপ ব্যবহারে কি কোনো পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া আছে? উত্তর: কিছু কিছু না ...

0 Like

হোমিওপ্যাথি কিভাবে কাজ করে ? চিকিৎসা নেয়ার আগে কিছু পরামর্শ

হোমিওপ্যাথি একটি লক্ষণ ভিত্তিক চিকিৎসা বিজ্ঞান । মনেরাখতে হবে যে, রোগের লক্ষণগুলোই রোগের প ...

0 Like

হোমিওপ্যাথি কিভাবে কাজ করে ?, চিকিৎসা নেয়ার আগে কিছু পরামর্শ

হোমিওপ্যাথি একটি লক্ষণ ভিত্তিক চিকিৎসা বিজ্ঞান । মনেরাখতে হবে যে,রোগের লক্ষণগুলোই রোগের পর ...

0 Like

যে সব খাবার অল্প বয়সেই আপনাকে বিপাকে ফেলতেপারে

প্রাত্যহিক জীবনে কতো কিছুই না খাওয়া হয়। কিন্তু সবকিছু কি আর স্বাস্থ্যবিধি মেনে খাওয়া যায়? ...

0 Like

স্ত্রী সহবাসের সুন্নাত নিয়ম?

সহবাসের সঠিক নিয়ম হলো স্ত্রী নিচে থাকবে আর স্বামী ঠিক তার উপরি ভাবে থেকে সহবাস করবে। মহান ...

1 Like

মাসিক হবার কত দিন আগে বা পড়ে কনডম ছাড়া সেক্স করা নিরাপদ

মাসিকের সময়ে শারীরিক মিলন করলে গর্ভধারনের সম্ভাবনা থাকে না, তবে এই সময়ে শারীরিক মিলন থেকে ...

1 Like

কিছু অপ্রচলিত খাবার যেগুলো প্রয়োজনে ব্যবহার করলে অনেক উপকার পাওয়া যায়

১. ক্যাকটাস: ক্যাকটাস গাছের পাতা সাধারণত কাটাযুক্ত হয়ে থাকে। দক্ষিন আমেরিকায় এই গাছ বেশি জ ...

0 Like

শীতকালে সর্দি, কাশি, নাক বন্ধ স্বাভাবিক ব্যাপার তবে যারা দীর্ঘদিন নাকের ড্রপ ব্যবহার করছেন তাদের কিছুটা সতর্ক হওয়া দরকার

কিছু কিছু নাকের ড্রপ আছে যা দীর্ঘদিন ব্যবহারে পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া দেখা দিতে পারে। তবে স্যাল ...

1 Like