Health experience | Write here | Write and share your health experience to help community.

অ্যালোভেরার ৯ টি আশ্চর্যজনক ও গুনগত ব্যবহার

Fahima Jara Tuesday, August 03, 2021


অনেক আগে থেকেই অ্যালোভেরা সব জায়গায় পরিচত। অ্যালোভেরা ঘৃতকুমারী নামেও পরিচিত। এই উদ্ভিদের গুনের কোন শেষ নেই। রাস্তাঘাট থেকে শুরু করে, বাজারেও অনেক স্বল্প মূল্যে এটি কিনতে পাওয়া যায়। অ্যালোভেরায় রয়েছে ক্যালসিয়াম, সোডিয়াম, জিংক, আয়রন, পটাসিয়াম, ফলিক এসিড, ভিটামিন-এ, বি৬, বি২ ইত্যাদি যা স্বাস্থ্যর জন্য খুবই উপকারী। 


অ্যালোভেরার ৯ টি আশ্চর্যজনক ও গুনগত ব্যবহার

হজম প্রক্রিয়া ঃ হজম শক্তি বাড়ানোর জন্য অ্যালোভেরার গুনের কোন পরিসীমা নেই। এটিতে থাকা অ্যান্টি-ইনফ্লামেটরি উপাদান পাকস্থলী ঠান্ডা থাকে সেই সাথে গ্যাসের সমস্যা দূর করে থাকে। সকালে খালি পেটে অ্যালোভেরা পানিতে গুড়ের সাথে মিশিয়ে খেলে অনেক উপকার পাওয়া যায়। 


ওজন কমাতে : অ্যালোভেরার জুস ওজন কমাতে সহায়তা করে থাকে। এটিতে থাকে অ্যান্টি-ইনফ্লামেটরি উপাদান যেটা শরীরে জমে থাকা মেদ / চর্বি কমাতে অনেক সাহায্য করে থাকে। যার ফলে স্বাস্থ্য অনেক ভালো থাকে।


চুলের যত্ন : অ্যালোভেরায় থাকে অ্যান্টিব্যাকটেরিয়াল উপাদান যার কারণে এটি আমলকির রসের সাথে চুলে ব্যবহার করলে চুলের উজ্জ্বলতা বেড়ে যায়। তাছাড়া চুলের শুষ্ক ভাব, খুসকি, চুল পড়া রোধ করতেও অ্যালোভেরা অনেক উপকার করে থাকে। 


ত্বকের যত্ন : অনেক আগে থেকেই ত্বকের যত্নে অ্যালোভেরা ব্যবহৃত হয়ে আসছে। এটি ত্বকের চুলকানি, রোদে পড়া দাগ, শুষ্কতা ভাব দূর করতে সহায়তা করে থাকে। অ্যালোভেরা নিয়মিত মুখে লাগলোর ফলে ত্বক অনেক মসৃন হয়, উজ্জ্বলতা ভাব আসে, বয়সের ছাপ মুখ থেকে কমাতে সহায়তা করে। 


ডায়াবেটিস : ডায়াবেটিসে আক্রান্ত ব্যক্তির অবশ্যই প্রতিদিন সকালে খালি পেটে এবং সেই সাথে দিনে কয়েকবার অ্যালোভেরার রস খেলে শরীরে থাকা গ্লুকোজের পরিমাণ কমিয়ে আনা সম্ভব হবে। সেই সাথে ডায়াবেটিস অনেকটা নিয়ন্ত্রণে থাকবে। 


দাঁত ও হার্টের সমস্যা : অ্যালোভেরার রস নিয়মিত খেলে দাঁতের মাড়ি ফুলা কমে যাবে সেই সাথে দাঁতে ইনফেকশন হউয়া থেকে রোধ করবে। অ্যালোভেরার রস কোলেস্টেরের মাত্রা কমিয়ে রাখে, দূষিত রক্তকে শরীর থেকে বের করে দেয় এবং হার্টকে সুস্থ রাখে। 


বুক জ্বালাপোড়া উপশম : অ্যালোভেরার রস নিয়মিত পানের ফলে গ্যাসের জ্বালাপোড়া অনেকটা কমে যায়। সেই থাকে বুক/পেট সবসময় ঠান্ডা থাকে। উদ্ভিদটির কম বিষাক্ততা থাকার কারনে এবং এটিতে থাকা বিভিন্ন উপাদানের ফলে এটি জ্বালার জন্য একটি নিরাপদ এবং হালকা প্রতিকার করে তোলে।


কোষ্ঠকাঠিন্য কমায় : অ্যালোভেরার পাতার চামড়ার নীচে পাওয়া ল্যাটেক্স, একটি আঠালো হলুদ অবশিষ্টাংশ, প্রায়ই কোষ্ঠকাঠিন্যের চিকিৎসায় ব্যবহৃত হয়। যার কারণে এটি ত্বকের উন্নতি করে এবং বলিরেখা প্রতিরোধে সাহায্য করে। গবেষণায় আরও দেখা গেছে যে অ্যালোভেরার প্রয়োগ ত্বকের লালচেভাব কমিয়ে দিতে পারে, যা এরিথেমা নামেও পরিচিত।


শেভিং জেল : এটি ত্বককে স্যাচুরেট ময়শ্চারাইজ করে, এটি আরও নরম এবং সতেজ করে তোলে। অ্যালোভেরা জেল খালি ব্যবহার করা যেতে পারে অথবা এটি অন্যান্য উপাদানের সাথে মিশিয়ে ব্যবহার করা যেতে পারে। যেমন বাদাম তেল, ইউক্যালিপটাস তেল ইত্যাদি। 



এগুলো ছাড়াও অ্যালোভেরার আরো অনেক গুণ রয়েছে যেমন- 

১.পিম্পল / ব্রন দূর করে।

২.পায়ের গোড়ালি ফাটা কমায়।

৩.ত্বকে বলিরেখা রোধ করে। 

৪.সানবার্ন দূর করে।

৫. ত্বককে সজীব রাখে।

৬.ত্বকের যৌবন ধরে রাখে।

৭.চুলের বৃদ্ধি ঘটায়।

৮.মেকাপ উঠানোর জন্য প্রাকৃতিক উপাদান হিসেবে ব্যবহার করা হয়। 



অ্যালোভেরা রোগ নিরাময় করতে সক্ষম। এটি একটি রসালো উদ্ভিদ। এটির গুনের কোন শেষ নেই। আমাদের দেশ ছাড়াও ভারতের বিভিন্ন জায়গায় এর প্রয়োজনীয়তা এবং ব্যবহার অনেক। এটি অনেক জটিল রোগ নিরাময়ের ক্ষেত্রে ব্যবহার করা হয়ে থাকে। কুষ্ঠ রোগের মতো অসুখ এটির মাধ্যমে নিয়ন্ত্রণে রাখা যায়। যার কারণে অ্যালোভেরা এক ধরনের আয়ুবের্দিক ঔষধ। 



অ্যালোভেরার অনেক গুনের মধ্যেও কিছু কিছু ক্ষেত্রে এটির অসুবিধাও রয়েছে

১.গর্ভবতীমহিলাদের এবং স্তন্যদানকারী মহিলাদের এটি এড়িয়ে চলা উচিত। 

২. অ্যালোভেরা বেশি পরিমানে খাওয়া ঠিক নয় কারণ এটি যেমন রক্ত বৃদ্ধি করতে সাহায্য করে। সেই থাকে কিডনির সমস্যা হতে পারে।

৩.মাত্রাতিরিক্ত ভাবে এটি খাওয়া যাবে না। তাহলে ডায়রিয়া হওয়ার সম্ভাবনা থাকে। 

৪. এটি ব্যবহারে বা খাওয়ার ফলে যদি কোন সমস্যা লক্ষ করা যায় তাহলে এটির ব্যবহার তাৎক্ষনিক সীমাবদ্ধ করতে হবে। 



সৌন্দর্য এবং স্বাস্থ্য রক্ষার ক্ষেত্রে অ্যালোভেরা অনেক আগে থেকেই মানুষ ব্যবহার করে আসছে। পৃথিবীতে ২৫০ রকমের অ্যালোভেরা জন্মায়। এটির রসকে মানুষ হেলথ্ ড্রিংক হিসেবে ব্যবহার করে থাকে। অ্যালোভেরায় থাকে প্রাকৃতিক ঔষধের উপাদান যেটা খাওয়ার ফলে খুব দ্রুত রোগ নিরাময় করে ফেলে।  অনেক স্বল্প মূল্যেই বাজারে অ্যালোভেরা পাওয়া যায়। তাই রুপচর্চা থেকে শুরু করে, রোগ নিরাময়, ক্ষত সারানো আরো অনেক কাজে এটি ব্যাবহার করা হয়। 


Share

You May Like

Cloud categories

osteoarthritis fibromyalgia gastric ulcer acute pain immunodeficiency nervousness severe eczema plaque psoriasis headache heart disease breast atherosclerosis dry skin cervical cancer vitamin-b myalgia bone marrow transplantation herpes zoster infected wounds piles calcium and vitamin d supplement lubrication neuropathy kidney stones etc. weight loss emergency contraception bipolar disorder pertussis gastrointestinal stromal tumor cold neurosyphilis runny nose nose ankylosing spondylitis ovarian cancer

মানুষের নাভির মধ্যে ৬৭ রকম ব্যাক্টিরিয়ার উপস্থিতি টের পেয়েছে বিশেষজ্ঞরা

বিশেষজ্ঞরা বলছেন, মানুষের শরীরের মধ্যে সবচেয়ে নোংরা জায়গাটি হল নাভি। শরীর থেকে ঘাম ও লোশন ...

0 Like

প্লাস্টিকের চাল,দেখুন আমরা কি খাচ্ছি টাকা দিয়ে কিনে

প্লাস্টিকের চাল,দেখুন আমরা কি খাচ্ছি টাকা দিয়ে কিনে।যারা চাল কিনে খান তারা ভাত রান্না করা ...

0 Like

যে সব খাবার অল্প বয়সেই আপনাকে বিপাকে ফেলতেপারে

প্রাত্যহিক জীবনে কতো কিছুই না খাওয়া হয়। কিন্তু সবকিছু কি আর স্বাস্থ্যবিধি মেনে খাওয়া যায়? ...

0 Like

ঘরোয়া পদ্ধতিতে কিভাবে অ্যাসিডিটি থেকে রেহাই পাবেন

অ্যাসিডিটি মানেই পেটের সর্বনাশ! কখনও বুকজ্বালা, কখনও ঢেঁকুর আবার কখনও বায়ুর চাপ। এরপর তেলজ ...

0 Like

মাথায় উকুন হলে কি করবেন?

যার একবার হয়েছে সেই জানে এর কষ্ট। তাই তো সবাই বেঁচে বেঁচে থাকে উকুনের থেকে। কিন্তু তবু কি ...

0 Like

কিছু অপ্রচলিত খাবার যেগুলো প্রয়োজনে ব্যবহার করলে অনেক উপকার পাওয়া যায়

১. ক্যাকটাস: ক্যাকটাস গাছের পাতা সাধারণত কাটাযুক্ত হয়ে থাকে। দক্ষিন আমেরিকায় এই গাছ বেশি জ ...

0 Like

হলুদ দিয়ে চা খান, শরীরের মেদ নিমেষে দূর হয়ে যাবে

হলুদের গুণাগুণ আমরা সকলেই জানি। শরীরের মেদ কমানোর যাবতীয় গুণাগুণ হলুদে রয়েছে। তাই হলুদ দিয় ...

1 Like

যে খাবার গুলো ভুল সময়ে খেয়ে নিজের অজান্তেই শরীরের মারাত্মক ক্ষতি করছেন

কয়েকটি খাবার দিনের নির্দিষ্ট সময়ে খাওয়া ভীষণ জরুরি। অন্যথায় শরীরের ক্ষতি হতে পারে। সম্প্রত ...

0 Like