Health experience | Write here | Write and share your health experience to help community.

আজকাল বেশিরভাগ মহিলারাই প্রসবকালীন বিষণ্নতায় ভোগেন, জানুন কেন এমন হয়, এর লক্ষণ, প্রতিরোধ ও চিকিৎসা

Fahima Jara Wednesday, September 22, 2021

গর্ভকালীন সময়ে বেশির ভাগ মহিলারাই হতাশার মধ্যে দিয়ে থাকে। অন্য যেকোনো ধরনের বিষণ্নতার মতো, জন্মগত বিষণ্নতা একটি ক্লিনিকাল বিষণ্নতা। যা একজন মহিলার গর্ভাবস্থায় ঘটে । গর্ভাবস্থায় হরমোনের পরিবর্তনের কারণে, মস্তিষ্কে রাসায়নিক পরিবর্তন হতে পারে। যা একজন মহিলার মানসিক স্বাস্থ্যকে প্রভাবিত করে তারপর তাকে বিষণ্নতা বা উদ্বেগের দিকে পরিচালিত করে। কখনও কখনও পরিস্থিতির কারণে মহিলার অবস্থা খারাপ হয়ে যায়। যদি কোন ব্যক্তি দুই সপ্তাহের বেশি সময় ধরে হতাশার মধ্যে দিয়ে কাটায় তাহলে তার অবশ্যই জরুরি ভিত্তিতে চিকিৎসকের পরামর্শ অনুযায়ী চলা উচিত।   




হতাশার উপসর্গ গুলোর মধ্যে রয়েছে- 

১. অবিরাম দুঃখ


২. একাগ্রতায় অসুবিধা


৩. ঘুমের ধরন পরিবর্তন


৪. কোন জিনিস অথবা কাজের প্রতি আগ্রহ হারিয়ে ফেলা। 


৫. প্যারেন্টিংয়ের ক্ষমতা নিয়ে সন্দেহ করা।


৬. গর্ভবতী হওয়ার বিষয়ে চিন্তাভাবনা।


৭. বেশি উদ্বেগ প্রবণ হওয়া 


৮. অপরাধবোধ করা 


৯. অসুস্থ চিন্তাভাবনা। 


প্রসবকালীন বিষণ্নতার প্রকৃত উদ্বেগ হলো, এমন ব্যক্তিদের স্টেরিওটাইপড মানসিকতা দেখা দেয় যারা প্রায়শই তাদের অস্তিত্বকে উপেক্ষা করে। প্রসবকালীন বিষণ্নতা কেবল মহিলাকেই প্রভাবিত করতে পারে না বরং তার গর্ভে থাকা শিশুর ক্ষতি করতে পারে। প্রসবপূর্ব বিষণ্নতার একটি বড় প্রভাব হলো অকাল জন্ম। এর ফলে শিশুর জন্য অনেক সমস্যার সৃষ্টি হয়।যেমন- 


১. কম ওজনের শিশুর জন্ম


২. বিকাশের সমস্যা এবং


৩. সামগ্রিক, মানসিক স্বাস্থ্যের উপর বিরূপ প্রভাব। 


প্রসবকালীন বিষণ্নতায় সাময়িক স্বস্তির জন্য নিজে নিজে এর চিকিৎসা করার চেষ্টা করা যাবে না। সাইকোথেরাপিস্ট এবং চিকিৎসকের দেওয়া ঔষধ সঠিক ভাবে মেনে চলতে হবে। এগুলো প্রসবকালীন বিষণ্নতাকে কার্যকরভাবে মোকাবেলা করতে সাহায্য করতে পারে।




প্রসবকালীন বিষণ্নতার কারণ 


জন্মগত বিষণ্নতার একাধিক কারণ রয়েছে। এর মধ্যে রয়েছে:


১/ পিএমডিডি (প্রিমেনস্ট্রুয়াল ডিসফোরিক ডিসঅর্ডার): এটি একটি খুব সাধারণ ব্যাধি, এটি মাসিক শুরু হওয়ার আগে হয়ে থাকে। এই ব্যাধির সময় মেজাজ বিরক্ত, ক্লান্ত, হতাশার অনুভূতি হয়। প্রসবপূর্ব বিষণ্নতা পাওয়ার এটি অন্যতম প্রধান কারণ হতে পারে।


২/ গুরুতর পিএমএস (প্রি-মাসিক সিন্ড্রোম): গুরুতর পিএমএস সাধারণত মাসিক চক্র শুরু হওয়ার এক সপ্তাহ আগে উপস্থিত হয়। শরীরে হরমোনের পরিবর্তনের কারণে গুরুতর পিএমএস হয়ে থাকে। যদি কোন ব্যক্তি এই অনুভূতিটি প্রায়শই পেয়ে থাকে, তাহলে তার প্রসবপূর্ব বিষণ্নতা হওয়ার সম্ভাবনা বেশি।


৩/ হতাশার ইতিহাস: অনেক সময় আমাদের পরিবারে বিষণ্নতা চলে এবং প্রায়ই আমাদেরকেও প্রভাবিত করে। এর সাথে, আমরা সাম্প্রতিক সময়ে যে ধরনের জীবনধারা নিয়ে এগিয়ে আসছি, প্রসবপূর্ব বিষণ্নতা পাওয়া প্রায় একটি প্রবণতা হিসাবে আসে। যাইহোক, এটি নানা রকম ভাবে পরিবর্তিত হয়ে থাকে ।


৪/ অল্প বয়সের গর্ভাবস্থা: অনেক সময় মানুষের শরীর গর্ভাবস্থার জন্য প্রস্তুত থাকে না। বছরের পর বছর ধরে, মহিলাদের শরীর বিভিন্ন হরমোনের পরিবর্তনের মধ্য দিয়ে যায় এবং অল্প বয়সে গর্ভাবস্থার প্রায়ই দেখা দেয়। কোন সময়টা মহিলাদের গর্ভাবস্থার জন্য উপযুক্ত সেটা অবশ্যই চিকিৎসকের কাছে থেকে জেনে নিতে হবে ।


৪/ পারিবারিক/সামাজিক সহায়তার অভাব: গর্ভাবস্থায়, মাকে নতুন পরিবর্তনগুলি মোকাবেলা করতে সাহায্য করার জন্য সামাজিক সহায়তা অনেক গুরুত্বপূর্ন। অনেক সময়, যে মহিলারা এই সহায়তা পান না। তারা হতাশার শিকার হয় এবং তাই তাদের স্বাস্থ্যের পাশাপাশি তাদের শিশুর ক্ষতি হয়ে থাকে। 


৫/ বৈবাহিক দ্বন্দ্ব: বৈবাহিক দ্বন্দ্বের সাথে মহিলাদের মানসিক চাপ নিয়ে আসতে পারে। যা প্রসবপূর্ব বিষণ্নতার দিকে নিয়ে যেতে পারে। এর কারণ হলো গর্ভাবস্থায় একজন মহিলার শরীরে বিভিন্ন ধরনের পরিবর্তন দেখা দেয় ৷ যা তার পক্ষে বোঝা কঠিন হতে পারে। হরমোনের পরিবর্তন অসীম, এবং বৈবাহিক দ্বন্দ্বের চাপ কেবল সেই বিষণ্নতার সাথে যোগ করে আরো মানসিক চাপ বাড়িয়ে দেয়। 


গত চার বছরে প্রসবকালীন বিষণ্নতার ঘটনা ৪৫% বৃদ্ধি পেয়েছে। যেহেতু একজন মহিলার স্বাভাবিক গর্ভাবস্থা সম্পর্কিত মেজাজ পরিবর্তন বা গুরুতর কিছু হচ্ছে কিনা তা খুঁজে বের করা কঠিন। তাই প্রসবকালীন বিষণ্নতার লক্ষণগুলি প্রায়ই উপেক্ষা করা হয়ে থাকে।



প্রসবকালীন বিষণ্নতার লক্ষণগুলির মধ্যে রয়েছে:

১. গুরুতর উদ্বেগ, প্রসবের ভয় বা গর্ভপাত


২. নিজেকে অপরাধী মনে করা


৩. সব সময় কান্নাকাটি করা


৪. একজন দক্ষ পিতা-মাতা হওয়ার বিষয়ে কম আত্মবিশ্বাস এবং শঙ্কা। 


৫. নিঃসঙ্গ বোধ করা, মেজাজ খিটখিটে এবং ভুল বোঝাবুঝি মধ্যে থাকা। 


৬. কম ঘুমানো এবং খাওয়ার সমস্যা


৭. মনোযোগের অভাব


৮. প্রসবপূর্ব পরিচর্যার প্রতি উদাসীনতা


৯. শিশুর প্রতি ক্ষোভ, ক্ষোভের কারণে এটি একটি অপ্রতিরোধ্য দায়িত্ব হবে। 




প্রসবকালীন বিষণ্নতা প্রতিরোধ গুলো হলো-

১/ যদি গর্ভাবস্থা অপরিকল্পিত বা অনাকাঙ্ক্ষিত হয়, তবে মানসিক চাপ আরও বেড়ে যায়। এই ক্ষেত্রে গর্ভবতী মহিলাকে অবশ্যই একজন সাইকোথেরাপিস্টের সাথে পরামর্শ করতে হবে। যিনি সেই গর্ভবতী মহিলাকে প্রসবকালীন বিষণ্নতা থেকে সহজেই মোকাবেলা করতে সহায়তা করতে পারেন।


২/ পেশাগত স্বাস্থ্যসেবা পরিষেবা গুলি অ্যাক্সেস করতে হবে। কারণ তাদের সাধারণত গর্ভবতী মহিলাদের বিষণ্নতা মোকাবেলার জন্য বিশেষ পরিষেবা রয়েছে।


৩/ ডাক্তারের দেওয়া গর্ভাবস্থার জন্য নিরাপদ, বিষণ্নতা-বিরোধী ঔষধ সেবন করতে হবে। 


৪/ একজন মহিলা গর্ভবতী থাকা সত্ত্বেও তার ফিটনেস রুটিন চালিয়ে যেতে ডাক্তার এবং একজন প্রত্যয়িত ফিটনেস বিশেষজ্ঞের সাথে কথা বলা উচিত। ব্যায়াম সুখী হরমোন নিঃসরণ করতে সাহায্য করে। যা গর্ভবতী মহিলাকে কেবল মানসিক চাপে রাখবে না বরং তার মনকে এমন কিছু থেকে সরিয়ে নিতে সাহায্য করবে যা খুব বেশি মনোযোগের প্রয়োজন হয় না।


৫/ পর্যাপ্ত পরিমাণে ঘুমাতে হবে। কম ঘুমানো মানসিক চাপের জন্য অনাকাঙ্ক্ষিত আনতে পারে এবং তাই প্রসবপূর্ব বিষণ্নতার শিকার হওয়ার সম্ভাবনা বাড়ায়।


৬/ যদি গর্ভবতী মহিলা গর্ভাবস্থা সম্পর্কে ভালো না অনুভব করেন তবে বিশেষজ্ঞের সাথে কথা বলতে হবে। কারণ প্রতিকারের চেয়ে প্রতিরোধই ভালো।




প্রসবকালীন বিষণ্নতার চিকিৎসা

প্রসবপূর্ব বিষণ্নতার চিকিৎসা অন্যান্য ধরনের বিষণ্নতার মতোই । ৯০% ক্ষেত্রে উপসর্গ নিয়ন্ত্রণের জন্য অ্যান্টি-ডিপ্রেসেন্ট ঔষধ দেওয়া হয়। যা এসএসআরআই (সিলেক্টিভ সেরোটোনিন রিউপটেক ইনহিবিটরস) এর মতো বিটা-ব্লকার ধারণ করে। গবেষণায় দেখা গেছে যে ঔষধের ব্যবহার গর্ভবতী মহিলাদের মধ্যে বিষণ্নতায় ভোগা অন্যান্য রোগীদের তুলনায় বেশি ফলাফল দেখায়। গর্ভাবস্থায় এন্টি-ডিপ্রেসেন্ট ব্যবহার করা একেবারেই নিরাপদ। কেননা এতে গর্ভে থাকা শিশুর বৃদ্ধিকে কোনোভাবেই বাধাগ্রস্ত করে না। 


যাইহোক, ঔষধ শেষ হউয়ার পরেও একটি সম্ভাবনা রয়েছে যে শিশুর মধ্যে ঝাঁকুনি বা বিরক্তির আকারে পার্শ্ব প্রতিক্রিয়া দেখা যেতে পারে। যেহেতু বিষণ্নতা-বিরোধী ঔষধ ব্যবহার, বিশেষ করে গর্ভাবস্থায় মায়ের ব্যক্তিগত পছন্দের উপর নির্ভর করে। কিছু রোগী থেরাপির সুবিধা এবং অন্যান্য বিকল্প চিকিৎসার পরিকল্পনার উপর নির্ভর করতে পছন্দ করে। ব্যায়াম করা, প্রসব-পূর্ব ম্যাসেজ এবং আকুপাংচারও আশাব্যঞ্জক ফলাফল দেখিয়েছে। তাড়াতাড়ি শনাক্ত করা গেলে, লক্ষণগুলি সময়মতো নিয়ন্ত্রণ করা যায়।






Share

Cloud categories

stomach cancer dry mouth alcoholism multiple sclerosis brain tumors pneumonia gum disease common cold injuries stroke prevention itchy allergies kidney disease anxiety disorders dementia diphtheria fractures nutrition gastric problems tuberculosis irritable bowel syndrome allergic contact dermatitis thrush gas inflammation cardiac arrest genital herpes pyelonephritis discomfort rhinitis wounds dry skin herpes simplex burns itching and pain trichomoniasis

স্ত্রী সহবাসের সুন্নাত নিয়ম?

সহবাসের সঠিক নিয়ম হলো স্ত্রী নিচে থাকবে আর স্বামী ঠিক তার উপরি ভাবে থেকে সহবাস করবে। মহান ...

1 Like

মাসিক হবার কত দিন আগে বা পড়ে কনডম ছাড়া সেক্স করা নিরাপদ

মাসিকের সময়ে শারীরিক মিলন করলে গর্ভধারনের সম্ভাবনা থাকে না, তবে এই সময়ে শারীরিক মিলন থেকে ...

1 Like

অপর্যাপ্ত ঘুমের কারণে বিষণ্ণতার সৃষ্টি হয় সাথে বারে ওজন

ব্যস্ত জীবনের সঙ্গে তাল মিলাতে গিয়ে অনেকেই পর্যাপ্ত পরিমাণ ঘুমাতে পারেন না অথবা অনেকে বিছা ...

0 Like

কোমর ব্যথার কারণ ও দূর করার উপায়

কোমর ব্যথার সমস্যায় কমবেশি সকলেই ভুগে থাকেন, আসুন জেনে নিই কোমর ব্যথার কারণ ও দূর করার উপা ...

0 Like

আয়ুর্বেদ অনুযায়ী পেটের চর্বি গলানোর ৯ টি সহজ উপায়

আমাদের দেশের অধিকাংশ মানুষই ওজন কমানো নিয়ে অনেক বেশি চিন্তার মধ্যে থাকে। ভুল খাদ্যভাসের জন ...

0 Like

গর্ভাবস্থায় সহবাস করা কি ঠিক

গর্ভাবস্থায় প্রথম তিন মাস সহবাস থেকে বিরত থাকাই ভালো । দ্বিতীয় তিনমাসে দম্পতির ইচ্ছে মতো স ...

0 Like

মানুষ কেন দুঃস্বপ্ন দেখে ? কিভাবে এর থেকে মুক্তি পাবেন ?

দুঃস্বপ্ন দেখার ফলে একেক মানুষের উপর একেক প্রভাব পরে। অনেকে রাতের বেলা দুঃস্বপ্ন দেখে ভয়ে ...

0 Like

কেন মানুষের মন খারাপ থাকে ? কিভাবে মানুষিক স্বাস্থ্য ঠিক রাখবেন ?

মন নিয়ে সঠিক সংজ্ঞা এখনো পর্যন্ত কেউ দিতে পারেনি। মন অনেক জটিল একটা জিনিস। মন এমন একটা বিষ ...

0 Like